colorgeo.com

Disaster and Earth Science

Sense of humor সেন্স অফ হিউমার কি, কেন, বৃদ্ধি করা প্রয়োজন

Sense of humor

Sense of humor শব্দটির আভিধানিক অর্থ কৌতুকরসবোধ, রসিকতাবোধ,হাস্যরসবোধ। শব্দটি প্রাচীন গ্রিসের  Humoral Medicine নামক তত্ত্ব থেকে আগত । এই  তত্ত্ব  অনুযায়ী Humor নামক এক ধরনের তরল ( liquid ) মানব শরীরের যাবতীয় কার্যাদি বিশেষ করে তার আবেগ ও স্বাস্থ্যকে নিয়ন্ত্রণ  করে । যে কোনো বয়স বা সংস্কৃতির মানুষই হিউমার বা হাস্যরসের প্রতি সাড়া দিয়ে বা এই সংক্রান্ত যেকোন বিষয় দ্বারা প্রভাবিত হবে এটা একটা সহজাত প্রবৃত্তি।
আরো সহজ করে বলতে গেলে, আপনি আপনার কথা দিয়ে মানুষকে কতটা বিনোদন দিতে পারেন অর্থাৎ আপনার কথা শুনে যদি মানুষ আনন্দ পায় তবে আপনি সেন্স অফ হিউমার Sense of humor বা হাস্যরসের অধিকারী।

Oxford Learners Dictionary তে সেন্স অফ হিউমার সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, ‘ A sense of humor refers to the ability ,general enjoyment in doing so or the particular types of things one finds funny.

ব্যক্তিজীবনকে আরো সহজ ও সুখময় করতে সেন্স অফ হিউমার Sense of humor এর প্রয়োজনীয়তা বলে শেষ করা যাবে না । জীবনকে আরো  গতিময় এবং প্রাণবন্ত করতে সেন্স অফ  হিউমার এক ধরনের টনিক হিসেবে কাজ করে।
এক গবেষণায় দেখা গেছে, রসিকতাবোধ বা সেন্স অফ হিউমারের সাথে একজন ব্যক্তিবিশেষের দুটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য বা  পারস্পরিক সম্পর্ক  বা কোরিলেশন লক্ষ্য করা যায় সেগুলি হল :
১. সৃজনশীলতা।
২. বুদ্ধিমত্তা।


বুদ্ধিমত্তার ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, সাধারণ ( general) এবং বাচনিক ( verbal) দুই ধরনের বুদ্ধিমত্তাই মানুষের রসিকতাবোধের  ইঙ্গিত বহন করে এবং পরিবর্তে  কাজ করে প্রজননগত সাফল্যের  প্রেডিক্টর হিসেবে ও ।তাই আংশিক ভাবে হলেও রসিকতাবোধের আবির্ভাবের জন্য দায়ী যৌন নির্বাচন( sexual selection) । সৃজনশীলতা প্রত্যেক মানুষের কামনা কিনা জানা নেই কিন্তু নিজেকে বুদ্ধিমান হিসেবে দেখতেও যৌনতায় সাফল্য লাভ করতে প্রত্যেক সুস্থ সবল মানুষ চায় সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। যা রসিকতা বোধের প্রয়োজনীয়তা থেকেই বিচার্য।
সেন্স অফ হিউমার হচ্ছে একটা  আর্ট বা শিল্প ।আমরা জানি আর্ট বা  শিল্পকে চর্চার মাধ্যমে বৃদ্ধি করা যায়।সেন্স অফ হিউমার  ও ব্যক্তি জীবনে অনুশীলনের মাধ্যমে বাড়িয়ে নেওয়া যায়।সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির জন্য আপনি নিম্নলিখিত কতগুলো নিয়ম অনুসরণ করতে পারেন।

 Sense of humor বৃদ্ধির জন্য রম্য রচনা মুলক বই পড়ার অভ্যাস

সাধারণত রম্য রচনা মুলক বইগুলোতে বিভিন্ন ধরনের স্মার্ট সারকাজম ব্যবহার করা হয়। এগুলো আপনার সেন্স অফ হিউমার বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। সাধারণত রম্য রচনা মুলকঃ বই গুলোতে বিভিন্ন ধরনের ঘটনাকে ব্যঙ্গাত্মকভাবে উপস্থাপন করা হয়। এতে করে আপনি নতুন করে জোকস তৈরীর উৎস পাবেন।মনে করেন আপনি একটা ব্যঙ্গাত্মক বই পড়লেন। সেই বইয়ের সবচেয়ে হাস্যকর  অংশটুকুকে  জোকস হিসেবে নিতে পারেন এবং আপনার বন্ধুদের সামনে জোকস হিসেবে উপস্থাপন করতে পারেন।তাছাড়া আপনি সেই বইয়ের হাস্যকর অংশটুকুকে আরেকটু ব্যঙ্গাত্মকভাবে জোকস হিসাবে উপস্থাপন করতে পারেন ।

ভালো রসবোধসম্পন্ন ব্যক্তিদের সান্নিধ্য

আপনি যাদের সাথে চলাফেরা করবেন তাদের চরিত্রের প্রভাব’ স্বাভাবিক ভাবেই আপনার মধ্যে প্রস্ফুটিত হবে।কাজেই ভালো রসবোধসম্পন্ন ব্যক্তিদের সাথে থাকলে তাদের রসবোধের কিছুটা আপনার মধ্যেও বিকশিত হবে। সেন্স অফ হিউমার হচ্ছে আর্ট।সাধারণত যার সেন্স অফ হিউমার একটু বেশি থাকে তারা সবার কাছে আকর্ষণীয় হয়ে থাকে এবং সবার কাছে প্রশংসনীয় হয়ে থাকে।যেহেতু সেন্স অফ হিউমার একটি আর্ট বা শিল্প,আমরা জানি যে কোন আর্ট বা  শিল্পকে দীর্ঘ সময় ধরে চেষ্টা করলে সেটাকে নিজের মধ্যে প্রবাহিত করা যায়।যাদের সেন্স অফ হিউমার বেশি যারা কথা বলে মানুষকে আকর্ষিত করতে পারে। যাদের কথায় মানুষ আনন্দ উপভোগ করে ,তাদের কথাগুলো অবজাভ করার চেষ্টা করুন।ওই ধরনের লোকদের সাথে বেশি বেশি মেশার চেষ্টা করুন।
বাংলায় একটা কথা আছে সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ।আপনি যখন ঐ সব লোকদের সাথে মিশবেন  তখন তাদের কিছু ইফেক্ট আপনার মধ্যেও পরবে এবং আপনি তাদের দেখে দেখে কিছু শিখতে পারবেন, তাদের কথা বলার ভঙ্গি তাদের চালচলন তারা কিভাবে কথা বলতেছে কোন কথাকে কিভাবে নিচ্ছে তাদেরকে অবজাভ করার চেষ্টা করুন যখন আপনি তাদের কথাকে ফলো করবেন বা তাদের মত অনুকরণ করার চেষ্টা করবেন তখন আপনার সেন্স অফ হিউমার তাদের মধ্যে কিছুটা হলেও বৃদ্ধি পাবে।যখন আপনি তাদের (যাদের সেন্স অফ হিউমার বেশি) প্রসেস কে অনুসরণ করবেন,তাদের প্রচেষ্টা কি নিজের মধ্যে আয়ত্ত করতে পারবেন।তারা কি ভাবে কথা বলতেছে, কোন কথা কীভাবে বললে সেটা থেকে মানুষকে একটু বিনোদন দেয়া সম্ভব, এগুলো যখন অবজার্ভ করে আপনি আয়ত্ত  করবেন,তখন আপনার সেন্স অফ হিউমার অটোমেটিকলি বৃদ্ধি পাবে।।অতএব চেষ্টা করুন মানুষকে অবজার্ডভ বা পর্যবেক্ষণ করতে যাদের সেন্স অফ হিউমার বেশি আছে।

নিজেই নিজের সাথে হাঁসতে শিখুন

যে কোনো কথাকে   হিউমার ( humor )তখনই বলা যেতে পারে,যখন কথাটা প্রথমতঃ সারপ্রাইজিং হয় এবং দ্বিতীয়তো  কেউ কোন রকম আঘাত না পায় । ধরুন আপনি আপনার কোন ফর্সা বন্ধুকে বললেন এই কালু , ফর্সা হওয়ার জন্য মাঝে মাঝে তো ফেয়ার এন্ড লাভলী ব্যবহার করতে পারিস। তখন সেটা হিউমার ক্যাটাগরিতে আসে, কারণ সেটা সারপ্রাইজিং এবং কাউকে হার্ড(hurt) করতেছে না। কারণ ও জানে যে ও আসলে ফর্সা।  কিন্তু সেই কথাটাই আপনি যদি আপনার কোন কালো বন্ধুকে বলেন যে হয়তো ফর্সা না হওয়ার কারণে আফসোস করে। তাহলে তখন সেই কথাটা আর হিউমার ক্যাটাগরির মধ্যে আসবে না কারণ এতে ওই মানুষটার খারাপ লাগতে পারে । সব থেকে ভালো যদি আপনি নিজে নিজের উপর হাসতে পারেন,বেশিরভাগ স্টান্ডার্ড কমেডিয়ান এই টেকনিকটাই ফলো করে। নিজেরাই  নিজেদের জোক্সের পাট বানান, যেমন আমার সাথে একদিন কি হল? বা আগের দিন আমি স্বপ্ন  দেখলাম ইত্যাদি ইত্যাদি।এই কোয়ালিটি সেন্স অফ হিউমার ডেভলপ করার জন্য সবথেকে বেশি জরুরি । অতএব সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির  অন্যতম সেরা উপায় নিজেই নিজের সাথে হাসতে শিখুন।

নিজে সুখী থাকুন এবং অন্যকে সুখী রাখু

যদি আপনি নিজে খুশি না থাকেন, তাহলে আপনি অন্য কাউকে কোনদিন খুশি করতে পারবেন না। কারণ আপনি নিজে দুঃখি। কিছুদিন আগে আমি আমার একজন বন্ধুকে জিজ্ঞেস করেছিলাম,ভাই তোর জীবনে সব থেকে বড় সমস্যা কি?তখন সে  সিরিয়াস হয়ে আমাকে বলেছিল, আমার জীবনে শুধু একটাই সমস্যা ।আমি যখন কোন জোকস বলি তখন লোকজন  সেটাকে সিরিয়াসলি নেয়। আর যখন আমি  সিরিয়াস কোনো কিছু বলি তখন লোকজন সেটাকে জোক্স মনে করে।আমি তখন তাকে হেসে বলেছিলাম,সেন্স অফ হিউমার অনেকটা মুডের( mood) উপর নির্ভর করে।তুই যদি ফুরফুরে (chill) মেজাজে থাকিস, তাহলে সব সময় কিছু ফানি দেখতে পাবি ,তোকে খুঁজতে ও হবে না । আমাদের জীবনের 99% আমাদের নিয়ন্ত্রনে নেই। অতএব জীবনটাকে একটা খেলনা হিসেবে নেওয়াই ভালো। এই টেকনিক আপনার সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধিতে অনেকটা সহায়তা করবে।

জোক্স  বলার অভ্যাস করা: 

সেন্স অফ হিউমার Sense of humor বৃদ্ধির অন্যতম সেরা টেকনিক হলো জোকস বলার অভ্যাস করা। তবে হ্যাঁ  জোকস বলার সময় সতর্ক থাকতে হবে, আপনার বলার জোকসে  কেউ যেন কোন রকম কষ্ট না পায় বা  কারো ব্যক্তিত্বে আঘাত না করে। এজন্যই বিখ্যাত ফরাসি  রম্য লেখক Anonymous বলেছেন,” It is not,How well you make a joke but How well you take a joke ,Define yours sense of humor” আপনি লক্ষ্য করবেন, আপনারা বন্ধুরা মিলে যখন আড্ডা দেন তখন আপনার সেই বন্ধুটিকে সবাই খোঁজ করে যে ভালো জোক্স বলতে পারে।এভাবে আপনি ভালো জোকস বলার অভ্যাস করার মাধ্যমে আপনার বন্ধু মহলের সবাইকে আকর্ষিত করতে পারেন  এবং সবার আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হতে পারেন । এভাবে আপনি আপনার পার্সোনালিটিকে  উন্নত করতে পারেন ।তাই সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির অন্যতম উপায় হচ্ছে ভালো জোকস বলার অভ্যাস করা।

জোক্স অভ্যাস করার জন্য , যারা ভালো জোক্স বলতে পারে বা যাদের ভালো জোকস বলার ক্ষমতা আছে আপনি তাদের অনুসরণ করতে পারেন।


যেকোনো পরিস্থিতিতে সেন্স অফ হিউমার এর ব্যবহার করা

সেন্স অফ হিউমারের সবটা নির্ভর করে আপনার মুডের (mood)  উপর।আপনি যে পরিস্থিতিতেই থাকেন না কেন, সেন্স অফ হিউমার বা হাস্যরসবোধ আনার চেষ্টা করবেন।তবে সেন্স অফ হিউমার বা হাস্যরসবোধের মূল কথাই হচ্ছে কাউকে আঘাত না করে নির্মল বিনোদন দেয়া। একদা হযরত আবু বক্কর, হযরত ওমর, হযরত আলী কোন এক যুদ্ধ থেকে বাসায় ফেরার পথে, হযরত আবু বক্কর, হযরত আলীকে মজার ছলে বলেছিলেন তুমি আমাদের দুজনের মাঝে নুনের( আরবি বর্ণ) ফোটার মত ছোট। উল্লখ্য এখানে হযরত আলী, হযরত ওমর এবং হযরত আবু বক্করের চেয়ে আকারে অনেক ছোট ছিলেন।তখন হযরত আলী ,আবু বক্কর কে বলেছিলেন  ফোটা  ছাড়া  নুনের মূল্য নেই। তখন তিনজনই অট্টহাসিতে ফেটে পড়লেন( ইসলামিক 101 গল্প। মাওলানা সিরাজ শেখ)। অতএব আপনি সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির জন্য যেকোনো পরিস্থিতিতে হাসতে চেষ্টা করেন।

নাটক এবং সিনেমার মাধ্যমে সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধি

অনেক কমেডি নাটক কিংবা সিনেমার মাধ্যমে আপনি আপনার সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধি করতে পারেন। সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির  অন্যতম একটি সেরা উপায় হচ্ছে কমেডি নাটক বা কমেডি সিনেমা। আমরা সাধারণত কোন সিনেমা বা নাটক দেখার পর সেই সিনেমা বা নাটকের হিরো বা কোন একটা চরিত্রের সঙ্গে নিজেকে মিলিয়ে নেই এবং তারা সিনেমা বা নাটকে যা যা করছে করেছে(হতে পারে কোনো সংলাপ বা কোন অঙ্গভঙ্গি) আমরা সেইরকম করার চেষ্টা করি  অর্থাৎ আমরা তাদের অনুসরণ করার চেষ্টা করি। তাদের সিনেমার বা নাটকের চরিত্র আমাদের মধ্যে প্রভাবিত হয়।তাই সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির অন্যতম সেরা একটি উপায় হচ্ছে নাটক বা সিনেমা।আপনি কোন একটা নাটক বা সিনেমার ফানি ক্যারেক্টার কে অনুসরণ করে আপনি আপনার সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধি করতে পারেন।

দৈনিক সংবাদপত্র পড়ার অভ্যাস

আমাদের দেশের সংবাদপত্রগুলোতে( বিশেষ করে রাজনৈতিক খবরগুলোতে) প্রচুর কমেডি ম্যাটেরিয়াল থাকে। সেখান থেকে জোকস তৈরি করে আপনি আপনার সেন্স অফ হিউমার  বৃদ্ধি করতে পারেন।ধরুন কোনো একটা দৈনিকে আপনি কোন এক রাজনৈতিক নেতার আর্টিকেল পড়লেন। সেই আর্টিকেলের কোন একটা অংশ  থেকে আপনি কমেডি ম্যাটেরিয়াল খুঁজে পেলেন ।সেই অংশটুকু কে আপনি আরেকটু হাস্যরসাত্মক ভাবে জোকস হিসাবে আপনার বন্ধুদের সামনে উপস্থাপন করতে পারেন।এভাবে আপনি দৈনিক পত্রিকা পড়ার মাধ্যমেও সেন্স অফ হিউমার বা হাস্যরস বৃদ্ধি করতে পারেন। 

দুশ্চিন্তা দূর করুন

আপনার মাথায় যদি দুশ্চিন্তা বা স্ট্রেস থাকে সেগুলো দূর করার চেষ্টা করুন।আপনি যখন দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হবেন  হতাশাগ্রস্ত  হবেন  ডিপ্রেশনে থাকবেন ,তখন আপনার ফানিমুড থাকবে না ,আপনি তখন নিজে হাসতে পারবেন না, তখন আপনি অন্য জনকে কিভাবে হাসাতে পারবেন?তাই সবসময় চেষ্টা করবেন দুশ্চিন্তা বা হতাশাগ্রস্ত না হতে।আপনি যখন কোন জোকস বলতেছেন দেখলেন যে, কোন মানুষ আপনার জোকস শুনে হাসতেছে না তখনও আপনি হতাশাগ্রস্ত হবেন না। আপনি আপনার চেষ্টা চালিয়ে যান আজ না  হাসলেও কাল তো হাসতে পারে ।আপনার আজকের কথা ফানি হচ্ছেনা কিন্তু কালকের কথা ফানি তো হতেই পারে। তাই কোনো ক্ষেত্রে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হওয়া যাবে না।  মনে করেন আপনি আপনার এক বন্ধুকে একটা জোক্স বলতে গেলেন তখন আপনার মনে দুশ্চিন্তা হলো আগামিকাল আমার পরীক্ষার রেজাল্ট। রেজাল্ট কি হবে না হবে এসব নিয়ে আপনার দুশ্চিন্তা করতে লাগলেন। তখন কিন্তু আপনি ভালভাবে আপনার বন্ধুর সামনে জোকস টা ডেলিভারি করতে পারবেন না এবং আপনি জোকস বললেও সেটা আপনি ভালোভাবে বলতে পারবেন না ।এবং সেটা  হাস্যরস হবে না।সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির অন্যতমএকটা বিষয় হচ্ছে মানসিক দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি ।তাই আপনি সবসময় চেষ্টা করবেন সব ধরনের দুশ্চিন্তা ,হতাশা থেকে মুক্ত থাকতে এতে আপনার সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির একধাপ এগিয়ে যাবেন।

Sense of humor to see the funny side to  almost everything :

প্রত্যেকটা জিনিস থেকে একটু ফানি মোমেন্ট  খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন। আপনি যখন প্রত্যেকটা জিনিস কে একটু আলাদাভাবে চিন্তা করবেন ,মানুষ গতানুগতিক যেভাবে চিন্তা করে আপনি তার চেয়ে আর একটু ভিন্নভাবে চিন্তা করুন ,তাহলে দেখবেন আপনি ওই জিনিসটাকে আরেকটুখানি ফানি  করতে পারবেন বা ওই জিনিসটার একটা হাস্যকর দিক আপনি খুঁজে বের করতে পারবেন। প্রত্যেকটা জিনিস কে কোন না কোনভাবে বা কোন জিনিসের সঙ্গে মিলিয়ে সেটাকে ফানি  বা হাস্যকর করা যায়, প্রয়োজনে কোনো কিছুর সঙ্গে  তুলনা করুন।কোনো কিছুর সঙ্গে যুক্ত করে দিন। কোন কোন উদাহরন জুড়ে দিয়ে এই জিনিসটাকে আপনি ফানি বা হাস্যকর করতে পারেন। ধরুন আপনার কোনো এক বন্ধু আপনাকে জিজ্ঞেস করলোঃ বলতো ইতিহাস কাকে বলে?
আপনি তখন উত্তর দিলেন ,মরা মানুষের কাহিনী পড়তে পড়তে জীবিত মানুষ আধমরা হয়ে যাওয়াকে ইতিহাস বলে।

এভাবে আপনি প্রতিটা কথা বা প্রতিটা জিনিস থেকে আপনি তার ফানি দিকটা খুঁজে বের করতে পারবেন ।তবে হ্যাঁ একটা বিষয় মনে রাখতে হবে এতে যেন কেউ কোন ধরনের কষ্ট না পায় বিষয়টা যেন  শুধু হাস্যকরই হয় কাউকে আঘাত যেন না করে।সেন্স অফ হিউমার এর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে হাস্যরস ।কাউকে আঘাত করা নয়।

এক্সপ্রেশন

আমরা জানি কোন কিছুর এক্সপ্রেশন ভালো হলে তার প্রেজেন্টেশনে ও ভালো হয়।আপনার যদি এক্সপ্রেশন ভালো হয় তাহলে মানুষ খারাপ জোকসে  ও হাসতে বাধ্য হবে। শুধুমাত্র এক্সপ্রেশন এর মাধ্যমে আপনি কোন কিছুকে সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারেন ।আপনারা যদি এক্সপ্লোশন খারাপ হয় আপনি যত ভালো জোকস বলেন না কেন মানুষ কিন্তু হাসবে না। কিন্তু আপনার এক্সপ্রেশন খুব ভালো আপনি এমন কিছু বলেন যে এটা হাসার মত নয় তবুও মানুষ  তখন হাসবে।  আপনার এক্সপ্রেশন যত ভালো হবে আপনার প্রেজেন্টেশন তত ভালো হবে। তাই আগে ঠিক করুন আপনার এক্সপ্লেনেশন কে সুন্দর ভাবে করার।
উদাহরণ হিসেবে বলা যেতে পারে,আপনার কোন এক বন্ধু হাস্যকর একটা জোকস কে স্বাভাবিকভাবে বলল জোকসটা হাস্যকর হলেও সেটা থেকে হাস্যরস পাওয়া নাও যেতে পারে। কিন্তু আপনার আরেক  বন্ধু একটা জোকস বলল কিন্তু জোকসটা হাস্যকর নয় তবুও তার অঙ্গভঙ্গি ,বলার ধরন এবং তার এক্সপ্রেশন জোকসটা কে আকর্ষণীয় করে তুলল। তাই সবকিছু নির্ভর করে আপনার অঙ্গভঙ্গি বা এক্সপ্লেনেশন এর উপর আপনি কতটা ভালো এক্সপ্রেস এর মাধ্যমে জোক্স বলতে পারছেন তার উপর হাস্যরস অনেকটাই নির্ভর করে।তাই সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধি করতে আপনার অবশ্যই এক্সপ্রেশনের উপর ফোকাস করতে হবে।


বডি ল্যাঙ্গুয়েজ Body language

সেন্স অফ হিউমার Sense of humor বৃদ্ধি করতে আপনার শারীরিক অঙ্গভঙ্গিতেও পরিবর্তন আনতে হবে।উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়ে বলতেছি,আপনার কোন এক বন্ধু জোকস কবিতা আবৃত্তি করার মত করে  বলতেছে।    আপনার আরেক বন্ধু একই জোকস হাত-পা নাড়িয়ে একটু অভিনয় করে বলতেছে ।আপনার যে বন্ধু কবিতার মতো করে জোকসটা বলতেছিল, তারচেয়ে যে বন্ধু হাত-পা নেড়ে অভিনয় করে বলতেছে তার জোকসটা স্বাভাবিকভাবেই একটু হাস্যরস বেশি হবে আনন্দদায়ক এবং আকর্ষনীয় হবে।সিনেমায় আমরা এই বিষয়টা দেখে থাকি,কোন কমেডিয়ানের  কথা না শুনেই তার  বডিল্যাঙ্গুয়েজ দেখেই আমরা হেসে  ফেলি। বডি ল্যাংগুয়েজ  সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির অন্যতম নিয়ামক। 

গুছিয়ে কথা বলার অভ্যাস করা

সেন্স অফ হিউমার Sense of humor বৃদ্ধির আরেকটি অন্যতম টেকনিক হচ্ছে গুছিয়ে কথা বলা।
ভালো সেন্স অফ হিউমারের আগে যেই জিনিসটা দরকার সেটা হল গুছিয়ে কথা বলার দক্ষতা।ভালো কমিক টাইমিং অনেকটাই আপনার গুছিয়ে কথা বলার দক্ষতা অথবা স্টোরি টেলিং স্কিলের উপর নির্ভরশীল।

আপনি লক্ষ্য করবেন আপনার কোন শিক্ষক যিনি অনেক ট্যালেন্টেড। কিন্তু তার স্পেলিংস্কিল বা স্পিক ডেলিভারি সিস্টেম বা গুছিয়ে কথা বলার অভ্যাস না থাকার কারণে তার ট্যালেন্ট থাকা সত্বেও তার ক্লাস অনেক বোরিং লাগে। আর আপনার যে শিক্ষক ততটা ট্যালেন্টেড না হওয়া সত্ত্বেও তার গুছিয়ে কথা বলার কারণে তার ক্লাসটা অনেক আনন্দদায়ক লাগে।  সেন্স অফ হিউমার এক্ষেত্রেও বিষয়টা  একই রকম ভাবে কাজ করে ।আপনি খুব ভালো জোকস জানেন কিন্তু সেটা  ভালোভাবে  ডেলিভারি করতে পারতেছেন না  তখন সেটা হাস্যরস না হয়ে বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। তাই সেন্স অফ হিউমার বৃদ্ধির জন্য  গুছিয়ে কথা বলার অভ্যাস করুন। 

Please follow and like us:
error0
fb-share-icon
Tweet 20
fb-share-icon20