পৃথিবীর প্রাগৈতিহাসিক দুর্যোগের কারণ সাইবেরিয়ার অগ্নুৎপাতঃ ৮০% প্রাণীর মৃত্যু

আজ থেকে ২৫২ মিলিয়ন (২৫.২ কোটি) বছর আগের কথা। সেই সময় পৃথিবীতে এক মহা বিপর্যয় ঘটে যায়। সেই ঘটনাকে বলা হয় পার্মিয়ান সময়ের গণবিলুপ্তি বা ইংরেজিতে Permian Mass Extinction। পৃথিবীর প্রায় ৯০% প্রাণী ধ্বংস হয়ে যায় স্থলভাগ এবং জলভাগের প্রাণীদের একটা মহা বিপর্যয় ঘটে। গবেষণায় দেখা যায় স্থলভাগের সমস্ত প্রাণীদের মধ্যে ৮০% প্রাণীর মৃত্যু হয় এবং সমস্ত প্রাণীদের মধ্যে প্রায় ৯০ শতাংশ প্রাণীর মৃত্যু হয়। পৃথিবীর ইতিহাসে, প্রাগৈতিহাসিক কালে ঘটে যাওয়া দুর্যোগের মধ্যে এটাই সবথেকে ভয়াবহ বিপর্যয়। ইংরেজিতে পার্মিয়ান গন বিলুপ্তিকে বলা হয় পার্মিয়ান গ্রেট ডাইং (Permian Great Dying event) ইভেন্ট। প্রাগৈতিহাসিক কালের মহা বিপর্যয় গুলোর মধ্যে এটা শুধু একটি নয়। এমন আরো চারটি মহা বিপর্যয় অতীতে ঘটেছিল। সে গুলোকে বলা হয় ডেভোনিয়ান এক্সটিংশন, পার্মিয়ান এক্সটিংশন, ক্রিটেসিয়াস এক্সটিংশন, পেলিওজিন এক্সটেনশন। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বর্তমান পৃথিবীতে তার ষষ্ঠ এক্সটিংশন ইভেন্ট অর্থাৎ ষষ্ঠ গণবিলুপ্তি ঘটনা ইতিমধ্যেই প্রত্যক্ষ ভাবে শুরু হয়েছে।

পৃথিবী
পৃথিবীর সাইবেরিয়াতে অবস্থিত (রাশিয়ার) ভলকানিক বা আগ্নেয়গিরির দীর্ঘস্থায়ী অগ্ন্যুৎপাতের ফলস্বরূপ গণবিলুপ্তির ঘটনা ঘটে। বর্তমান রাশিয়ার সাইবেরিয়া তে অবস্থিত।

যাই হোক আজকের লেখাটা মূলত পার্মিয়ান সময়ের গণবিলুপ্তি ঘটনাকে কেন্দ্র করে। পার্মিয়ান গণবিলুপ্তি এর প্রধান কারণ হিসেবে দায়ী করা হয় বর্তমান সাইবেরিয়াতে অবস্থিত (রাশিয়ার) ভলকানিক বা আগ্নেয়গিরির দীর্ঘস্থায়ী অগ্ন্যুৎপাতের ফলস্বরূপ গণবিলুপ্তির ঘটনা ঘটে। বর্তমান রাশিয়ার সাইবেরিয়া তে অবস্থিত আগ্নেয়গিরির জমাটবদ্ধ লাভা এর বয়স নির্ণয় করে জানা যায় যে এটা ২৫২ মিলিয়ন বছর এর সমসাময়িক সময়ের। ঠিক একইভাবে, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ভূপৃষ্ঠে অবস্থিত দৃশ্যমান ২৫২ মিলিয়ন বছর সময়ের পাথরের বয়স নির্ণয় করে দেখা গিয়েছে যে সাইবেরিয়ার আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের ফলে সৃষ্ট পাথরের বয়সের সমান। পার্মিয়ান সময়ের গণবিলুপ্তির প্রমাণ হিসেবে ২৫২ মিলিয়ন বছরের পাথরের পাললিক শিলার মধ্যে অবস্থিত স্থলভাগের কোন প্রাণীর ফসিল এর অস্তিত্ব পাওয়া যায় না তবে তার আশে পাশে ফসিলের অস্তিত্ব আছে।এভাবে পার্মিয়ান সময়ের পাললিক শিলার বয়স নির্ণয় ও তাতে অবস্থিত আগ্নেয়গিরির ২৫২ মিলিয়ন বছরের ভস্ম ও তার সমসাময়িক বয়স প্রমাণ করে সাইবেরিয়ার অগ্ন্যুৎপাতের হলে পার্মিয়ান সময়ের গণবিলুপ্তি ঘটেছে এবং এই আগ্নেওগিরির ঘটনায় মূলত এত বৃহৎ আকারের যে স্থল ও জলভাগের প্রাণের বিপর্যয়ের মূল কারণ এই সাইবেরিয়ার অগ্ন্যুৎপাত। সাইবেরিয়া আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত একটি দীর্ঘস্থায়ী ঘটনা, যা কিনা প্রায় ১০ লক্ষ বছর ধরে চলমান ছিল অর্থাৎ এত দীর্ঘ সময় ধরে অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা সত্যিই অবাক করা বিষয় কিন্তু এটাই বাস্তবতা এবং গবেষণায় তা উঠে এসেছে।

যেকোনো গণবিলুপ্তির ঘটনা হঠাৎ একদিন এ ঘটে না। এটা একটি দীর্ঘ মেয়াদী প্রক্রিয়া। গবেষণায় দেখা যায় পার্মিয়ান সময়ের গণবিলুপ্তি সম্পূর্ণভাবে ধ্বংসাত্মক পর্যায়ে যেতে ৬০ হাজার বছর সময় লাগে। অর্থাৎ ৬০ হাজার বছর ধরে প্রাগৈতিহাসিক কালের (পারমিয়ান সময়) পৃথিবীর জল এবং স্থলভাগের ৮০% প্রাণের ধ্বংস হয়।

এখন প্রশ্ন উঠে যদি সাইবেরিয়ার আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত প্রধানত এই ধ্বংসাত্মক কাজের জন্য দায়ী হয় তবে দুটো ঘটনার মধ্যে সময়ের যে একটা বিশাল ব্যবধান পরিলক্ষিত তা কিভাবে সম্পর্কিত হতে পারে? কেননা সাইবেরিয়ার অগ্ন্যুৎপাতের সময়কাল ছিল দশ লক্ষ বছর অন্যদিকে পার্মিয়ান গণবিলুপ্তি সময়কাল মাত্র ৬০ হাজার বছর। এটা সমাধান করার উদ্দেশ্যে আরো একটি গবেষণা পরিচালনা করা হয় সেখানে দেখানো হয়েছে যে সাইবেরিয়ার অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা মূলত একটি সিরিজ আকারে পৃথক পৃথক আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাতের ঘটনা। এরমধ্যে যে সময়ের অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা অত্যধিক ভয়াবহ ছিল তার একটি মূলত পার্মিয়ান সময়ের গনবিলুপ্তির সময়ের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ। এখানে প্রমাণ হিসেবে কয়েকটি বিষয় উপস্থাপন করা হয়েছে এর একটি হলো কোরোনিন (Coronin) নামক কার্বনের একটি অ্যারোমেটিক যৌগ।

যখন কোন দহন প্রক্রিয়া শুরু হয় তখন অক্সিজেনের ঘাটতির কারণে দহন প্রক্রিয়া অসম্পূর্ণ থাকতে পারে, সেই অসম্পূর্ণ দহন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের জৈব যৌগ তৈরি হতে পারে এর মধ্যে একটি হল পিএএইচ (পলি অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন)। গবেষণায় দেখা যায়, কম তাপমাত্রার দহন প্রক্রিয়া কোরোনিন (Coronin) তৈরি হয় না। এর জন্য দরকার উচ্চ তাপমাত্রা অর্থাৎ অগ্ন্যুৎপাতের ফলে ভূপৃষ্ঠে বিদ্যমান জৈব যৌগের দহন প্রক্রিয়া উচ্চ তাপমাত্রায় যদি অধিকসংখ্যক কোরোনিন (Coronin) উৎপন্ন হয় তখন বলা যায় উক্ত অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনাটি একটি অধিক ধ্বংসাত্মক । এভাবে পার্মিয়ান পাললিক শিলার মধ্যে বিদ্যমান কোরোনিন (Coronin) এর অধিক উপস্থিতির মাধ্যমে ধ্বংসাত্মক আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাতের ঘটনা প্রমাণ করা যায়। সাইবেরিয়া তে অবস্থিত আগ্নেয়গিরির দীর্ঘস্থায়ী ঘটনাগুলোর মধ্যে ঠিক পার্মিয়ান গণবিলুপ্তি সময় কার সমসাময়িক সময়ে সংঘটিত আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত পার্মিয়ান বিলুপ্তির প্রধান কারণ। বলা বাহুল্য, পার্মিয়ান সময়ের গন বিলুপ্তির কারণ হিসেবে গবেষকরা বিভিন্ন বিষয় উপস্থাপন করেছেন এরমধ্যে হল বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি, অ্যাসিড বৃষ্টি, ভূপৃষ্ঠে অবস্থিত গাছপালার ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়ে মাটির ক্ষয় হওয়া এবং

অধিক নিউট্রিএন্ট সমৃদ্ধ মাটি সমুদ্রের জলে মিশে অক্সিজেনের ঘাটতি তৈরি করে জলজ প্রাণী ধ্বংস করা। এ সবগুলোরই প্রধান কারণ হিসেবে বর্তমান সাইবেরিয়ায় অবস্থিত আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত দায়ী হয়।

Please follow and like us:

Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

বিহারের মধুবানি চিত্রকলা

Tue Jun 9 , 2020
মধুবানি হলো বিহার রাজ্যের একটি জেলা,আর মিথিলা এরই একটি অঞ্চল এখান থেকেই উদ্ভব এই মধুবানি চিত্রকলার।এটা ২৫০০ বছরের পুরোনো একটা লোকশিল্প। মধুবানি চিত্রকলা মূলত এসেছে হিন্দুদের ধর্মগ্রন্থ রামায়ণ থেকে।প্রাচীন কালে এই মিথিলার রাজা ছিলেন জনক,আর সীতা ছিলেন তার কন্যা।তিনি সীতার বিবাহ উপলক্ষে নকশা করার জন্য তাঁর চিত্রশিল্পীদের মধুবানি নকশা করার […]