colorgeo.com

Disaster and Earth Science

Floods in france 2020 ভয়ংকর ফ্রান্সের বন্যা ২০২০: ইউরোপের অন্যতম পরাশক্তি সমৃদ্ধ দেশ ফ্রান্স । ভৌগলিকগত দিক থেকে দেশটির আকৃতি দেখতে অনেকটা ষড়ভুজাকৃতির  । ফ্রান্সের উত্তর-পূর্ব  দিকে আছে বেলজিয়াম ও লুক্সেমবুর্গ এবং পূর্ব দিকে আছে ইউরোপের শক্তিশালী জার্মানি ও ইতালি । দক্ষিণ-পশ্চিমে আছে  জার্মানি  উত্তর -পূর্ব অংশে আছে পৃথিবীর বৃহত্তম ইংলিশ চ্যানেল ।  পশ্চিমে  আটলান্টিক মহাসাগর । ফ্রান্সের উত্তর আছে , উত্তর মহাসাগর এবং দক্ষিণ-পূর্বাংশে ভূমধ্য মহাসাগর ।

ভৌগলিকগত অবস্থান দেশটিকে এখন অনন্য স্থানে নিয়ে গিয়েছে।  দেশটির উত্তর উপকূলীয় অঞ্চল নিম্নভূমি ও সমভূমি দ্বারা বেষ্টিত । দক্ষিণ মধ্য প্রান্তে আছে পাহাড়ী উঁচু ভূমি আর দেশটির পূর্ব অংশে রয়েছে বরফাবৃত পর্বতমালা সমূহ  ।ভৌগলিকগত বিচিত্র হওয়ার কারণে ফ্রান্সে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও বিচিত্র । প্রত্যেক ঋতুতে ফ্রান্সে  কোন না কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ফ্রান্সে হয় থেকে ।ভৌগলিক বিচিত্রতার সাথে সাথে  ফ্রান্সের প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও  বিচিত্রতা রয়েছে । সাম্প্রতিককালে ফ্রান্সের ইতিহাসে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে বড় বন্যা  সংঘটিত হয় ২০২০ সালে । এই বন্যাকে  ফ্রান্সের ইতিহাসে একটি উল্লেখযোগ্য বন্যা হিসেবে বিবেচিত করা হয় । আজ আমরা ফ্রান্সের ইতিহাসের অন্যতম  ভয়ংকর বন্যার [Floods in france 2020] আদ্যোপান্ত জানব।
Floods in france 2020

Floods in france 2020 ভয়ংকর ফ্রান্সের বন্যা ২০২০:

সময়কাল ৫ অক্টোবর ২০২০ । পুরো ফ্রান্সে সতর্কবার্তা প্রদান করা হয় যে ,সারাদেশে বৃষ্টিসহ ভারি বজ্রপাত হতে পারে ।  আবহাওয়া অধিদপ্তরের বরাতে এটাও বলা হয় যে সবাইকে নিরাপদ আশ্রয়ে অবস্থানের জন্য । তথ্য ও প্রযুক্তির দিক দিয়ে এগিয়ে যাওয়া ফ্রান্স বন্যার পূর্বপ্রস্তুতি থাকার কারণে দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অনেকাংশে কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছিল । ৫ ই  অক্টোবর সারাদিন ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে ফ্রান্সের দক্ষিণ-পূর্বাংশে বন্যার দেখা দেয় । উল্লেখ্য ফ্রান্সের দক্ষিণ-পূর্বাংশ পাহাড়ি অঞ্চল হওয়ায় ফ্রান্স সরকার বন্যা দুর্গত অঞ্চলে উদ্ধার কাজের জন্য এক হাজার দক্ষ দমকল  কর্মী চারটি হেলিকপ্টার এবং বিপুল পরিমাণে সেনা নিয়োগ করেছিলেন । পাহাড়ি অঞ্চল হওয়ায় বন্যা দুর্গতদের উদ্ধারকাজে উদ্ধারকর্মীদের অনেক প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হয়। তবে ফরাসি সরকারের উদ্ধার তৎপরতায় খুব কম সময়ে বন্যা দুর্গতদের উদ্ধার করা হয়।

এই [Floods in france 2020] বন্যায়  সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় ফ্রান্সের দক্ষিণ-পূর্ব পাহাড়ি অঞ্চলের শহর নিস। ফ্রান্সের নিস শহরে বন্যায় ভেসে গিয়েছিল অসংখ্য ঘরবাড়ি স্কুল কলেজ সহ অসংখ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান , ভেঙ্গে পড়েছিল যোগাযোগ ব্যবস্থা ।  ফরাসি সরকারের উদ্ধারকাজে তৎপরতা থাকা সত্ত্বেও নিসে  বিশেষ সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছিল, শহরের অধিবাসীদের স্থানীয় আশ্রয় কেন্দ্রসমূহে আশ্রয় নেওয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছিল । তাদের আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে যেতে সাহায্য করেছিল দমকল কর্মীসহ ফরাসি সেনাবাহিনী । পুরো তিন দিন নিসে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন ছিল।জন জীবনে  এক ধরনের বিপর্যয় নেমে এসেছিল পুরো নিস  শহরবাসীর জীবনে  ।

ফ্রন্সের   দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের  সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী জানা যায় যে, এই বন্যায় সর্বমোট নিখোঁজের সংখ্যা ছিল  ৮ জন তাদের মধ্যে দুইজন ছিল দমকলকর্মী । এই [Floods in france 2020] বন্যার  স্রোত অনন্য বন্যার  স্রোতের  চেয়ে তীব্র ছিল । ফরাসি প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছেিল উদ্ধার কাজে সহায়তা করার   জন্য দমকল কর্মীদের একটি গাড়ির প্রবল স্রোতে ভেসে গিয়েছিল । ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে এবং বন্যা হওয়ার কারণে ফ্রান্সের  তাহলে অঞ্চলসমূহে পাহাড় ধ্বস দেখা দেয় । গিরিপথ সমূহে পাহাড় ধস নেমে আসে এবং গিরিপথে আটকে পড়া ২৫  জনকে উদ্ধার করেন ফ্রান্সের দমকল কর্মীরা ।

ঘটনার তীব্রতা এতটাই বেশি ছিলো যে, ফরাসি প্রধানমন্ত্রী হেলিকপ্টার করে ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চল পরিদর্শন করেন এবং তিনি জানান ,প্রাকৃতিক দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি সামলাতে সরকার পরিকল্পনামাফিক এগোবে । পরবর্তীতে ফরাসি সরকার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা প্রদানের জন্য তহবিল গঠন করেন । বন্যা ক্ষতিগ্রস্তদের প্রত্যেককে অর্থ দিয়ে সহায়তা করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে ফরাসি সরকার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন । এই [Floods in france 2020 ফটো] বন্যায় হতাহতের সংখ্যা কম হলেও ক্ষয়ক্ষতি দিক দিয়ে ভয়ংকর রূপ নিয়েছিল। ২০০৮  সালের পর ফ্রান্সের ইতিহাসে এ বন্যায় সবচেয়ে ভয়ঙ্কর প্রাকৃতিক দুর্যোগ ।  

বন্যা সম্পর্কিত আরও তথ্য জানতে আমদের সাইট ভিজিট করুন। ভূমিকম্প সম্পর্কিত আরও তথ্য জানতে আমাদের সাইট ভিজিট করুন। 

বিহার ভূমিকম্প (১৯৩৪) Earthquake in Bihar 1934

Earthquake-weather বা ভূমিকম্প আবহাওয়া কি আছে?

আরও পড়ুন বন্যা নিয়ে বিদেশে পড়াশুনার বৃত্তি

Please follow and like us:
error0
fb-share-icon
Tweet 20
fb-share-icon20