colorgeo.com

Disaster and Earth Science

বন্যা র সময় করণীয় বিষয়গুলো অবশ্যই জেনে রাখুন

বন্যা
বন্যা

ভৌগলিক অবস্থানগত কারণে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশকে ঘূর্ণিঝড় জলোচ্ছ্বাস বন্যা কালবৈশাখী ঝড় বজ্রপাত ভূমিধস খরা শৈত্যপ্রবাহ তাদের দুর্যোগ মোকাবেলা করতে হয়। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে উদ্যোগের মাত্রা প্রতিবছর আরো তীব্রতর হচ্ছে পাশাপাশি অগ্নিকাণ্ডসহ মানবসৃষ্ট দুর্যোগ বেড়ে যাচ্ছে । এসব দুর্যোগ মোকাবেলার জন্য একটি দুর্যোগ সহনীয় জাতি গঠনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার সমন্বিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম এর মাধ্যমেকে বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করছে। প্রায় প্রতি বছরই কোনো না কোনো দুর্যোগে অতি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর গৃহহীন হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করে । দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নিরাপত্তা জোরদার করা প্রয়োজন । বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা রয়েছে সেগুলো মেনে চলা উচিত । বাংলাদেশে বন্যা অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয় সেই ক্ষয়ক্ষতির জন্য সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। বাংলাদেশ বন্যায় প্রতিবছর মিলিয়ন ডলার ক্ষয়ক্ষতি হয়। এই বন্যা বাংলাদেশের সাথে একটি অতি পরিচিত দুর্যোগ। বাঙালি যেন এই বন্যার সাথে বন্ধুত্ব করে বেঁচে থাকে। কিন্তু বন্যায় ক্ষয়ক্ষতি কখনই কম নয় বিশেষত প্রান্তিক ভূমিহীন মানুষ অথবা নদী তীরবর্তী বসবাসকারী নাগরিকরাই বন্যার ক্ষয়ক্ষতি বেশি অনুভব করে

প্রতিবছর বন্যা আসে এবং বাংলাদেশের মানুষ মোকাবেলা করে বন্যার সময় কিছু করণীয় থাকে যেগুলো অনুসরণ করলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কিছুটা পুষিয়ে নেয়া যায় । বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় যে বন্যার সময় করণীয় বিষয়গুলো অবশ্যই জেনে রাখুন ।

বন্যার ক্ষয়ক্ষতি থেকে বাঁচতে বন্যার সময় করণীয় বিষয়গুলো ধাপে ধাপে নিচে লিপিবদ্ধ করা হলো।

যথাসম্ভব উঁচু জায়গায় বাড়ি তৈরি করুন

বাড়ি নিচু থাকলে মাটি কেটে ভিটা উঁচু করুন ( বন্যার উচ্চতা এবং আগাম বন্যার সম্ভাব্য উচ্চতা মাথায় রেখে)

বাড়ির চারপাশে গাছ লাগান।

বাড়ির চারপাশে ঢেউ প্রতিরোধ করার জন্য ধল কমলি, কাশিয়া, দূর্বাঘাস অন্যান্য ভাঙ্গন প্রতিরোধ লাগান

বন্যার আগে ঘরের বেড়া ও শক্ত মজবুত করুন

বন্যার জন্য ঘরে অবশ্যই অন্যান্য খাদ্য শস্যের পাশাপাশি কিছু শুকনো খাবার রাখুন যেমন চাল ডাল শিশুদের জন্য বিস্কুট গুঁড়া দুধ ইত্যাদি

বন্যার সময় তিন বেলা রান্না করা অসম্ভব’ যেকোনো কারণে নিয়মিত খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করে দিনে একবার রান্না করে সারাদিন খাওয়া প্রয়োজনে কম পরিমাণে (শুধুমাত্র বড়দের জন্য প্রযোজ্য)

বস্তা মাটির পাতিল কলসি ইত্যাদিতে জরুরী খাদ্য সংরক্ষণ করা যায় লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে বন্যার পানি উঠে খাদ্যগুলো নষ্ট না করে।

পরিশেষে বলা যায় বন্যা মোকাবেলা করার জন্য আমাদেরকে একটু সচেতন হতে হবে যাতে ক্ষয়ক্ষতি কমানো যায় । যেহেতু ভৌগোলিকভাবে বাংলাদেশের অবস্থান এমন এক জায়গায় যেখান থেকে সাধারণ দুর্যোগ বন্যা জলোচ্ছ্বাস ভূমিকম্প দূর করা বা নির্মূল করা কখনোই সম্ভব নয় তাই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমিয়ে আমাদের নাগরিক সমাজকে আরো বেশি দুর্যোগ সহনীয় করে তোলা তাই অধিক বেশি গুরুত্ব

ধন্যবাদ

Please follow and like us:
%d bloggers like this: